পুরষ- নারীর যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে যে যে খাবার খাওয়া উচিত

শরীরের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে চাই ব্যালেন্স ডায়েট। তবে অনেকেই আবার ওজন দ্রুত কমাতে অনুসরণ করেন নিম্নমানের ডায়েট চার্ট। এতে ওজন কমলেও শরীরের বেশ কিছু অঙ্গের ক্ষতি হয় ব্যাপক। দেখা দেয় যৌন অক্ষমতা। যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য কোন প্রকার ওষুধের প্রয়োজন নেই, তার জন্য দৈনন্দিন পুষ্টিকর খাবারদাবারই যথেষ্ট। আর তাই প্রতিদিন ডায়েট চার্টে রাখুন কিছু ফল-সবজি যা আপনার লিঙ্গের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত রাখবে। জানেন কি, এমনই কয়েকটি খাদ্যের মধ্যে রয়েছে সেই আশ্চর্যজনক উপাদান! যা আপনার হারিয়ে যাওয়া সেক্স ড্রাইভ পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করতে পারে।

আপেল: প্রতি দিন পুরুষদের একটি করে আপেল খাওয়া উচিত। এন্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ জননাঙ্গে রক্ত সরবরাহ বাড়ায়। যা আপেলের মধ্যে থেকে পাওয়া যায়।

দুধ : বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এ ধরনের প্রাকৃতিক খাদ্য আপনার যৌনজীবনের উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়। কিন্তু আপনি যদি শরীরে সেক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সগুলিকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

কলা: কলা পুষ্টি বাড়ায় শুধু তাই নয়, যৌন ইচ্ছা তীব্র করে। এতের প্রচুর পরিমাণে রয়েছে পটাশিয়াম। যা যৌন মিলনে শক্তি যোগায়।

রসুন: যৌন সমস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। স্মরণাতীতকাল থেকেই নারী পুরুষ উভয়েরই যৌন উদ্দীপনা বাড়াতে এবং জননাঙ্গকে পূর্ণ সক্রিয় রাখতে রসুনের পুষ্টিগুণের কার্যকারিতা সর্বজনস্বীকৃত। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা যৌন ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়।

মধু: যৌন দুর্বলতার সমাধানের মধুর গুণের কথা সবারই কম-বেশি জানা। তাই যৌন শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম জলে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে খান।

গাঁজর: গাঁজরে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি বিদ্যমান। এতে ভিটামিন ‘এ’ আছে যা পুরুষদের হরমোন তৈরিতে সাহায্য করে। প্রতিদিন সালাদে গাঁজর খেলে সু-স্বাস্থ্যের পাশাপাশি সুস্থ্য সবল থাকবে যৌনাঙ্গও।