ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত মেধাবী শিক্ষার্থী প্রিয়া বাঁচতে চায়

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
আগামী দিনের উজ্জ্বল ভবিষ্যত-গরীব পিতা মাতার বুকের ফুটফুটে সন্তান আজরিনা শারমিন প্রিয়া ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে সকল আশা আকাঙ্ক্ষা বিলিন হতে শুরু করেছে প্রিয়া ও তার পরিবারের।হারিয়ে গেছে তাদের মুখের হাসি,নেমে এসেছে সংসারে করুন দৃশ্যের ছাপ।
ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত শিক্ষার্থী প্রিয়াকে বাঁচাতে বিত্ত্ববানদের কাছে আর্থিক সহযোগিতা কামনা করেন তার পরিবার।
প্রিয়ার স্বপ্নের কথা যে কাউকে কাঁদিয়ে যাবে একমূহুর্তের জন্য হলেও।যে স্বপ্ন মরণব্যাধী ব্রেন টিউমারে বিলিনের পথে।
স্বপ্ন যেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়,প্রিয়ার বাস্তবতা সেখানে হাসপাতালের বেড।
যশোর সরকারি এম,এম কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর মানবিক শাখার শিক্ষার্থী আজরিনা শারমিন প্রিয়া (২০)।
ইচ্ছা ছিল এইচ,এস,সি পরীক্ষায় ও এস,এস,সি পরীক্ষার মত ভাল ফলাফল করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে দেশ ও জাতির সেবা করবে।পূরণ করবে বাবা-মায়ের অনেক স্বপ্ন।কিন্তু ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস তাঁর,অনেক দিন ধরে দেখা দিয়েছে ব্রেন টিউমর।
যে সময়টাতে তার মনোযোগ দিয়ে ক্লাস করার কথা,বন্ধু-বান্ধবীদের নিয়ে আড্ডা দেওয়ার কথা,নিজের জীবনের লক্ষ্য পূরনে এগিয়ে যাওয়ার কথা,কিন্তু ঠিক সেই সময় ভাগ্যের কঠিন বাস্তবতার সাথে লড়াই করে বেঁচে থাকার তাগিদে আপ্রাণ চেষ্টা করছে প্রিয়া।
বই-খাতা ছেড়ে অনেক আগেই তাঁর হাতে উঠেছে প্রেসক্রিপশনস।বর্তমানে তাঁর ব্রেন টিউমর আস্ত্রপাচার করতে হবে ভারতের মাদ্রাজ শহরের একটি হাসপাতালে।প্রিয় সন্তানে কে বাঁচানোর জন্য দিন রাত সংগ্রাম করছেন তাঁর চা দোকানী বাবা যশোর সদর উপজেলার ছুটিপুরের ফিরোজ আহমেদ।
অনেক কষ্টে মানুষের সহযোগীতায় চলছে তাঁর অল্প চিকিৎসা।প্রিয়া এসএসসি,তে সরকারি মোমিন গার্লস স্কুল,যশোর থেকে ‘জিপিএ ৫’ পেয়েছিল।
মরণব্যাধি ব্রেন টিউমরে আক্রান্ত প্রিয়াকে বাঁচতে হলে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ১০ লাখ টাকার প্রয়োজন।
দীর্ঘদিন বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পরেও সুস্থ হওয়ার ফলে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন।এমন অবস্থায় জরুরী ভিত্তিতে উন্নত চিকিৎসার জন্যে টাকার প্রয়োজন।
কিন্তু পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম বাবা প্রথম অবস্থায় পাঁচ-ছয় লক্ষ টাকা খরচ করার পর এখন আর তাঁর একার পক্ষে খরচ বহন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান এই প্রতিবেদক কে।প্রিয়া’ত সবার জীবনে থাকে কিন্তু আমরা কি পারিনা প্রিয়া কে সুন্দর পৃথিবীতে বাঁচিয়ে রেখে তাঁর স্বপ্ন পূরণ করতে?
প্রিয়ার চাওয়াটা বেশি কিছু না শুধু সে চায় মা-বাবাকে নিয়ে পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে।আমরা কি পারি না তার এই চাওয়াটা পূরণ করতে?আমাদের সকলের সম্মিলিত সহযোগিতায় পারে তাকে একটি সুস্থ সুন্দর জীবন উপহার দিতে। তাঁর জন্যে পরিবারের পক্ষ থেকে সহযোগিতা কামনা করছেন।
তাকে সাহায্য পাঠাবার ঠিকানা ব্যাংক সঞ্চায় হিসাব নং-৩৪১৭৮৩১১ সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখা,যশোর।
বিকাশ ও যোগাযোগ ০১৭২৫-৩১৭০১৯ (ফিরোজ আহমেদ পিতা)।

কালাম সর্দার

কলারোয়া (সাতক্ষিরা ) প্রতিনিধি, দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতা পেশার সাথে জড়িয়ে আছেন। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশই তাঁর লক্ষ্য এবং এ বিষয়ে তিনি অনেক সচেতন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।