রামগতিতে পুলিশের কাছ থেকে মাদকের আসামি ছিনতাই!

ইউনুছ শিকদার:
রামগতিতে পুলিশের ওপর হামলা করে গদাধর দাস নামের মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত এক পলাতক আসামিকে ছিনিয়ে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তিন পুলিশ আহত হয়েছেন। শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে রামগতি পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের চর ডাক্তার আশ্রম বাজারে এ ঘটনা ঘটে। গদাধর ওই এলাকার কর্নধর দাসের ছেলে।

হামলায় আহত পুলিশের এএসআই মঈনউদ্দিন, কনস্টেবল আশরাফুল ও ফোরকানকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় এএসআই মঈনউদ্দিন বাদী হয়ে শনিবার রামগতি থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় গদাধর দাসসহ ২২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ১০-১২জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১০ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেছে।

গ্রেফতারকৃত হচ্ছে, আশ্রম এলাকার সুব্রত চন্দ্র দাস, রিংকন চন্দ্র দাস, রুপন চন্দ্র দাস, মরন চন্দ্র দাস, রকি চন্দ্র দাস, রঞ্জিন চন্দ্র দাস, অমল চন্দ্র দাস, দীপক চন্দ্র দাস, অনিল চন্দ্র মজুমদার, ও সংগীত চন্দ্র দাস।

পুলিশ জানায়, নিয়মিত টহল ও গ্রেফতারি পরোয়ানার আসামি গ্রেফতার করার জন্য এএসআই মঈন উদ্দিন ৬ কনস্টেবলকে সঙ্গে নিয়ে শুক্রবার রাতে এলাকায় বের হন। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে চর ডাক্তার আশ্রম বাজারে চা দোকানে মাদক মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গদাধরকে গ্রেফতার করার চেষ্টা করেন। এ সময় গদাধরের চিৎকারে তার কয়েকজন সহযোগী এগিয়ে এসে কর্তব্যরত পুলিশের ওপর হামলা করে তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। হামলায় এএসআই মঈনউদ্দিনসহ দুই কনস্টেবল আহত হন। খবর পেয়ে রামগতি থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করে।

রামগতি থানার ওসি এটিএম আরিচুল হক জানান, পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা দেওয়া, পুলিশের ওপর হামলা ও আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে থানা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় ১০ জনকে গ্রেফতার দেখিয়ে শনিবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। গদাধরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলেও তিনি জানান।

ইউনুছ শিকদার

সুবর্ণচর (নোয়াখালী) প্রতিনিধি, দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতা পেশার সাথে জড়িয়ে আছেন। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশই তাঁর লক্ষ্য এবং এ বিষয়ে তিনি অনেক সচেতন।