লালমনিরহাট বিসিক শিল্পনগরী নানা সমস্যায় জর্জরিত

এম সহিদুল ইসলাম লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা আর সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার অভাবে লালমনিরহাট বিসিক শিল্পনগরী এখন মুখ থুবড়ে পড়েছে। উদ্যোক্তাদের অনীহা, প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধার অভাব আর লোকবল সংকটের কারণেই গড়ে উঠছে না কোন নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান।

১৯৮৭ সালে লালমনিরহাটের সাপ্টিবাড়ী এলাকায় ১৫ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। এরপর ১৯৯৩ সালে ১শ ৬টি প্লট নিয়ে নির্মিত হয় বিসিক শিল্পনগরী। ২৩টি শিল্প ইউনিট গড়ে তুলতে ৯১টি প্লট বরাদ্দ নেয় উদ্যোক্তরা। বর্তমানে চালু আছে ১টি মুড়ির মিল, ১টি ফার্নিচার কারখানা, ১টি ময়দার মিল, ১টি হিমাগার, ১টি প্লাস্টিক কারখানাসহ ১০ টি প্রতিষ্ঠান। অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, অব্যাহত লোকসান, কাঁচামালের অভাবসহ নানা সমস্যায় বন্ধ রয়েছে বেশ কয়েকটি কারখানা। আর বাকি প্লটগুলো পরিণত হয়েছে গোচারণভূমিতে।সহজ শর্তে ঋণ, উদ্যোক্তাদের মাঝে আগ্রহ সৃষ্টি, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ প্রশিক্ষণ ও লোকবল সংকট দূর হলে বিসিক শিল্পনগরী প্রাণ পাবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। সব প্লট বরাদ্দ হলে নতুন শিল্প-কারখানা গড়ে উঠার পাশাপাশি কর্মসংস্থান বাড়বে এবং স্বাবলম্বী হবে এখানকার মানুষ- বললেন লালমনিরহাট বিসিকের উপ-ব্যবস্থাপক আবু হোসেন।

বিসিক শিল্পনগরীকে ঘিরে বিরাজমান সমস্যা অচিরেই দূর হবে- এ আশাতেই আছে লালমনিরহাটবাসী।

এস.এম সহিদুল ইসলাম

লালমনিরহাট প্রতিনিধি, দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতা পেশার সাথে জড়িয়ে আছেন। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশই তাঁর লক্ষ্য এবং এ বিষয়ে তিনি অনেক সচেতন।